Home > অর্থনীতি > পদ্মা সেতুর কাজ লক্ষ্যের চেয়ে পিছিয়ে ‘৮ মাস’

পদ্মা সেতুর কাজ লক্ষ্যের চেয়ে পিছিয়ে ‘৮ মাস’

মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়ে যে সময়ের লক্ষ্য নিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ চলছে, কাজ তা থেকে আট মাস পিছিয়ে রয়েছে।

ফলে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এই সেতুর কাজ শেষ করা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে কাজে গতি আনতে কিছু সুপারিশ করেছে সরকারের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি)।

নানা জটিলতা পেরিয়ে পদ্মায় মূল সেতু নির্মাণে ২০১৪ সালের নভেম্বরে কাজ শুরু হয়; নদী শাসন, সংযোগ সড়কসহ অন্যান্য কাজ শুরু হয় তারও আগে।

প্রকল্পের প্রথম সংশোধনীর পর ২০১৫ সালে তা শেষ করার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছিল। দ্বিতীয় সংশোধনীতে কাজ শেষ করার নতুন লক্ষ্য ঠিক হয় ২০১৮ সালের নভেম্বর, নির্মাণ ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা।

মূল কাজ শুরুর পৌনে ২ বছর পর গত ৩০ সেপ্টেম্বর সেতুর প্রথম স্প্যান বসানো হয়, যার মধ্য দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের এই সেতু দৃশ্যমান হল বলে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের উচ্ছ্বসিত।

এরপর প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে ২০ নভেম্বর একটি প্রতিবেদন চূড়ান্ত করে আইএমইডি; যাতে প্রকল্প কাজে পিছিয়ে থাকার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়।

বিভাগের উপ পরিচালক জয়নাল মোল্লা ইতোমধ্যে ওই প্রতিবেদন সেতু বিভাগ, পরিকল্পনা কমিশন, সেতু কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ দ্বিতল (সড়ক ও রেল) পদ্মা সেতু প্রকল্পের ৪৮ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। এই পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে ১৪ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা।

“সেতুর মূল কাজের কর্ম পরিকল্পনা অনুযায়ী অগ্রগতির বিবেচনায় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান প্রায় আট মাস পিছিয়ে আছে বলে প্রতীয়মান হয়,” বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।

দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে জটিলতায় বিশ্ব ব্যাংককে বাদ দিয়ে বাংলাদেশ সরকার নিজস্ব অর্থে এই সেতুর কাজ করাচ্ছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানিকে দিয়ে।

প্রকল্প পর্যবেক্ষণে গতিহীনতার নজির হিসেবে আইএমইডির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৪২টি পিয়ারের (স্তম্ভ) মধ্যে দুটির কাজ সম্পন্ন হয়েছে, এছাড়া মাত্র ছয়টি পিয়ারের পাইলিং সম্পন্ন এবং চারটির আংশিক সম্পন্ন হয়েছে।

“৪২টি পিয়ারের মধ্যে ১৪টির পাইল ডিজাইন সংশোধনাধীন। এই ১৪টির পাইল ডিজাইন কবে পাওয়া যাবে এবং ডিজাইন প্রাপ্তির জন্য প্রকল্প কর্তৃপক্ষের প্রচেষ্টা সম্পর্কে জানা প্রয়োজন।”

প্রথম স্প্যান বসানোর পর দ্বিতীয়টি কবে বসবে, তা নিয়েও অনিশ্চয়তার কথা এসেছে আইএমইডির প্রতিবেদনে। এই সেতুতে মোট ৪১টি স্প্যান বসবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, পাইলিংয়ের জন্য চারটি হ্যামার প্রকল্প এলাকায় থাকলেও তার দুটি কার্যকর রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *